বাংলাদেশ থেকে ইতালির ভিসা কিভাবে পাওয়া যায়

বাংলাদেশ থেকে ইতালির ভিসা কিভাবে পাওয়া যায় এই সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু আলোচনা করব আজকে আপনাদের সাথে। 

আশা করব আপনারা যারা প্রবাসে যেতে চান তারা হয়তো অনেকেই ভালো কোন দেশে যেতে চান তাদের জন্য আজকের এই আমার আলোচনাটি। 

কেননা ইতালি একটি খুব সুন্দর দেশ এ দেশে বর্তমানে ওয়ার্কার ভিসায় লোক নেওয়া হচ্ছে, তাই আপনারা যারা বাংলাদেশ থেকে ইতালি যেতে চান ,

তারা অবশ্যই আমার এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়বেন, আশা করবো আপনাদের কিছুটা হলেও প্রকৃত হবেন। 

তাই আপনারা যারা বাংলাদেশ থেকে ইটালি ভিসা কিভাবে পাবেন এ বিষয়ে জানতে চান তাহলে নিচের আর্টিকেলগুলো সম্পূর্ণ পড়ুন, তাহলে চলুন আজকের আর্টিকেলটি শুরু করা যাক। 

বাংলাদেশ থেকে ইতালির ভিসা কিভাবে পাওয়া যায়

বাংলাদেশ থেকে ইতালির ভিসা কিভাবে পাওয়া যায়

বাংলাদেশ থেকে ইতালি যেতে হলে অবশ্যই সরকারিভাবে যেতে হবে, যারা বাংলাদেশ থেকে ইতালি যেতে চান। 

তাদের একটি বৈধ পাসপোর্ট সর্বপ্রথম করতে হবে, তাছাড়া পাসপোর্ট এর মেয়াদ অবশ্যই এক বছর থাকতে হবে। 

তারপর আপনাকে সিলেক্ট করতে হবে আপনি কোন ভিসার মাধ্যমে ইতালি যেতে চান, অর্থাৎ ইতালি যাওয়ার জন্য ইতালি টুরিস্ট ভিসা, ইতালি মেডিকেল ভিসা, ইতালি কৃষি ভিসা, ইতালি স্পন্সর ভিসা এই ধরনের ভিসা গুলো রয়েছে। 

এদের মধ্য থেকে কোন ভিসায়ে যেতে চান সেটা সিলেক্ট করতে হবে, তারপর আপনাকে ইতালির ভিসা খরচ সম্পর্কে জানতে হবে। 

অর্থাৎ কোন ভিসায়ে যাওয়ার জন্য কত খরচ হতে পারে, তারপর সবকিছু ঠিকঠাক করে ইতালি ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে, তাহলে কিছুদিনের মধ্যেই ইতালি ভিসাটি হাতে পেয়ে যাবেন। 


ইতালির ভিসা আবেদন কত তারিখ থেকে শুরু হবে?

আমরা সকলেই একটা বিষয়ে ভালো করেই জানি সেটি হল প্রতিবছর আমাদের বাংলাদেশ থেকে বিপুল পরিমাণ মানুষ ইতালি যায়। 

কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে এশিয়া মহাদেশে এর অনেক মানুষ ইতালি যেতে পারলেও ইতালি সরকার বিভিন্ন কারণে আমাদের বাংলাদেশকে ব্ল্যাকলিস্ট এর মধ্যে রেখে দিয়েছিল। 

এবং কারণ হিসেবে জানিয়েছিল যে বাংলাদেশে এর শ্রমিকরা কোন ধরনের নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা করে না। 

এছাড়াও আরো বিভিন্ন ধরনের দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে ইতালি সরকার এই কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছিল। 

তবে সবকিছু অবসান ঘটিয়ে পুনরায় বাংলাদেশ থেকে ইতালি ভিসার আবেদন শুরু হয়ে গিয়েছে।  উল্লেখ্য যে ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের ১ তারিখ থেকে পুনরায় বাংলাদেশ থেকে ইতালি যাওয়ার ভিসা আবেদন করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। 

তাই এখন আপনি ঠিক আগের মত করে পুনরায় সরকারি এবং বেসরকারি ভাবে ইতালি ভিসার জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন। 

আপনি আর সেইসাথে এখন আমাদের বাংলাদেশ সে থাকা মানুষেরা সিজনাল এবং স্পন্সর ভিসার মাধ্যমে ইতালি যেতে পারবেন। 


ইতালি স্পন্সর ভিসা কি

ইতালি স্পন্সর ভিসা কি, ইতালিতে প্রতি বছর বিভিন্ন রাষ্ট্র থেকে কাজের জন্য লোক নেওয়া হয়ে থাকে। 

 ইতালি যেহেতু খুবই উন্নত একটি দেশ তাই ইতালিতে কাজের জন্য দক্ষ লোক লাগে। যার কারণে প্রতি বছর ইতালি সরকার বিভিন্ন দেশ থেকে শ্রমিক আমদানি করে থাকে ইতালি স্পন্সর ভিসার মাধ্যমে। 

বাংলাদেশ থেকে যদি কেউ ইতালি স্পন্সর ভিসার মাধ্যমে ইতালি যেতে চান তাহলে তাকে অবশ্যই সরকারিভাবে যেতে হবে। 

ইতালি স্পন্সর ভিসায় যেতে হলে একটি বৈধ পাসপোর্ট লাগবে যে কোম্পানির হয়ে কাজ করতে চান, তার অ্যাপার্টমেন্ট লেটার লাগবে। 

এছাড়াও আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্র সহ আরো কিছু ডকুমেন্ট লাগতে পারে ইতালিতে যাওয়ার জন্য। 

বাংলাদেশ থেকে ইতালির ভিসা কিভাবে পাওয়া যায়

ইতালি নাগরিকত্ব পেতে কত সময় লাগে?

ইতালি নাগরিকত্ব পেতে কত সময় লাগে এ বিষয়ে আপনারা যারা জানতে চান তারা এখান থেকে খুব সহজেই জেনে নিতে পারেন। 

বিয়ের মাধ্যমে ইতালি নাগরিত্ব পাওয়া যেতে পারে, ইতালির পূর্ব পুরুষদের তালিকা মাধ্যমে নাগরিত্ব এবং ১০ বছর টানা রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে নাগরিকত্ব পাওয়া যেতে পারে। 

এছাড়াও কোন প্রবাসী প্রাপ্তবয়স্ক ছেলে কিংবা মেয়ে, ইতালিয়েন কোন নাগরিককে বিয়ে করার দু বছরের মধ্যেই ইতালির নাগরিকত্ব লাভ করতে পারেন। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন

যোগাযোগ ফর্ম