সরকার ভাবে রোমানিয়া ভিসা কিভাবে পাওয়া যায়

সরকার ভাবে রোমানিয়া ভিসা কিভাবে পাওয়া যায় এ বিষয় নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করব। 

এছাড়াও আরো রোমানিয়া সম্পর্কে কিছু তথ্য আপনাদের সাথে শেয়ার করব আশা করব আমার এই আর্টিকেলটি অবশ্যই আপনাদের ভালো লাগবে। 

তাই রোমানিয়া সম্পর্কে আপনারা যদি জানতে আগ্রহী হন তাহলে আমার এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়ে বুঝে নেবেন। 

সরকার ভাবে রোমানিয়া ভিসা কিভাবে পাওয়া যায়


সরকার ভাবে রোমানিয়া ভিসা

আপনারা যারা সরকারিভাবে রোমানিয়া যেতে চান তারা এই লিংকে ক্লিক করে ওয়েবসাইট থেকে রোমানিয়া সরকারি ভিসা জন্য আবেদন করতে পারবেন। 

সরকারিভাবে রোমানিয়া যাওয়ার ভিসার খরচ পড়বে পাঁচ থেকে ছয় লক্ষ টাকার মতন। 

দীর্ঘ কয়েক মাস রোমানিয়া ভিসা বন্ধ ছিল করোনা মহামারীর কারণে, কিন্তু সম্প্রতি ২০২৩ সালে রোমানিয়া ভিসা চালু করার পরই। বাংলাদেশ থেকে রোমানিয়া যাওয়ার চাহিদা অনেক বেশি বেড়ে গিয়েছে। 

তাই রোমানিয়াতে যেহেতু অনেক গুলো ভিসা চালু রয়েছে আপনি যেই ভিসা যেতে চান, সে ভিসায়ে যেতে কত টাকা লাগবে সেটা আগে আপনার কোম্পানির সাথে কন্টাক করে নিবেন। 

অথবা আপনি যেই দালালের মাধ্যমে যেতে চান তার সাথে কন্টাক করে নিতে পারেন তারা আপনাকে আপনার সম্পূর্ণ খরচ জানিয়ে দিবে। 


রোমানিয়া ভিসা এজেন্সি

আপনারা যারা রোমানিয়া ভিসা এজেন্সি কোথায় এ সম্পর্কে জানতে চান তারা খুব সহজেই এখানেই পেয়ে যাবেন। 

বর্তমানে ঢাকাতে রোমানিয়া ভিসা প্রসেসিং এজেন্সি রয়েছে তবে এক্ষেত্রে কিছু রোজিস্টিং এজেন্সি রয়েছে। এ সময় এই এজেন্সি গুলো রোমানিয়া নিয়োগকর্তাদের থেকে অ্যাপ্রুবাল নিয়ে আসে। 

বাংলাদেশী প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে approval নেওয়ার পরেই সে সমস্ত রেকর্ডিং এজেন্সি রোমানিয়াতে কাজের ভিসা নিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে, এবং তারা লোক ঠকাতে পারে। 

এক্ষেত্রে আপনাকে খুবই সতর্ক হতে হবে, কেননা বর্তমানে লোক ঠকানো টা একটি ব্যবসা হয়ে দাঁড়িয়েছে। 

এর জন্য আপনাকে খুবই সতর্কতার সহিত এজেন্সির সাথে ডিল করতে হবে, তাছাড়া সরাসরি আপনারা যদি রোমানিয়া ভিসা সংক্রান্ত কোনো তথ্য জানতে প্রয়োজন হয়। 

অথবা রোমানিয়া ভিসার জন্য আবেদন করতে চান তাহলে বি এমইটি ভবনের মাধ্যমে সরাসরি আপনারা ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। 

এছাড়া প্রয়োজনীয় কোর্স সম্পূর্ণ করেও আপনারা রোমানিয়া ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। 

তা ছাড়াও অন্যান্য রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে যদি যেতে চান তাহলে অবশ্যই আগে নাম্বার এবং তাদের লাইসেন্স সম্পূর্ণ আছে কিনা সেই বিষয়টিও জেনে নিতে হবে। 

কেননা যেসব এজেন্সি গুলো সরকার অনুমোদিত নয় সেই সব এজেন্সি গুলো আপনাকে ঠকানোর প্রলোভন বেশি থাকে। 

এছাড়া আপনি যদি বাংলাদেশ প্রবাসী মন্ত্রণালয় থেকে সহযোগিতা নিতে চান তাহলে এই লিংকে প্রবেশ করুন। 


রোমানিয়া ভিসার দাম কত

আপনারা যারা রোমানিয়া বিষের দাম কত এ সম্পর্কে জানতে আগ্রহী তারা এখান থেকে জেনে নিন। 

রোমানিয়া কাজের ভিসা পাওয়া বর্তমান বাংলাদেশের জন্য সৌভাগ্য কারণ রোমানিয়া দেশে বেতন অনেক বেশি। 

কিন্তু বর্তমানে আপনি খুব সহজেই সরকারিভাবে রোমানিয়া যেতে পারবেন রোমানিয়া ভিসার দাম কত এটা নির্ভর করে আপনি কোন ক্যাটাগরী ভিসা নিয়ে যাবেন। 

আপনি যদি কাজের ভিসা নিয়ে রোমানিয়া যান তাহলে আপনার আনুমানিক খরচ হবে সাত থেকে আট লক্ষ টাকার মতন। 

কেননা রোমানিয়া যাওয়ার নির্ধারিত কোন মূল্য নাই এর জন্য আপনাদের একটা ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করলাম। 


রোমানিয়া ভিসা আবেদন

রোমানিয়া ভিসা আবেদন কিভাবে করবেন এটা হয়তো অনেকেই জানেন না তাদেরকে আজকে আমি জানিয়ে দেবো রহমানিয়ার ভিসা আবেদন কিভাবে করতে হয়। 

ভিসা প্রসেসিং এর বেশ কিছু নিয়মাবলী রয়েছে যদিও বেশিরভাগই ক্ষেত্রে নিয়ম গুলো একই হয়ে থাকে। 

তবে বেশ কিছু ভিন্ন ব্যাপার ও উল্লেখিত হয়েছে যেহেতু আমরা আজকের আর্টিকেলটিতে বেশ কিছু আলাদা আলাদা ভিসা ধরণ নিয়ে জানিয়েছি  .

আপনাদের রোমানিয়া ভিসা আবেদন করার জন্য সাতটি জিনিস প্রয়োজন যেমন। 

এক আপনার জন্য নির্ধারণ করা রোমানিয়া ভিসা টি সঠিকভাবে বাছাই করে নিন। 

২ রোমানিয়া ভিসার জন্য আবেদনটি শুরু করতে হবে আপনি যদি অনলাইনের মাধ্যমে করেন। 

তাহলে যেই ফর্ম এর মাধ্যমে আপনার রোমানিয়া ভিসা প্রসেসিং শুরু করবেন সেটা সঠিকভাবে সিলেক্ট করে ডাউনলোড করে নিন। 

এরপর ডাউনলোড করা মেইল ফর্মটি পূরণ করে তার এক কপি করে রাখুন নিজের কাছে। 

এবং ভিসা আবেদন ফরমটি নিয়ে ভিসা অফিসে গিয়ে জমা দিন তারপর আপনার জন্য একটি বৈধতিন আবেদন পত্র রাখা হবে সেটা সঠিকভাবে পূরণ করে নিন। 

সাক্ষাৎকারটি ভালোভাবে লিপিবদ্ধ করুন যখনই আপনার ভিসা আবেদনের প্রশেস সম্পূর্ণ হয়ে যাবে। 

ঠিক তখনই ভিসা অফিসের জন্য আপনার সাক্ষাৎকারটি সঠিকভাবে সঠিক সময়ে লিপিবদ্ধ করে ফেলতে হবে। 

সাক্ষাৎকারটি কনফার্ম করার জন্য অবশ্যই আপনাকে সকল প্রকার বায়োমেট্রিক তথ্য দিতে হবে। 

তার মানে হল আপনাকে সঠিকভাবে আপনার আঙ্গুলের ছাপ দিয়ে দিতে হবে। 

চার রোমানিয়া ভিসার জন্য ফি প্রদান করুন আপনার ভিসার ক্যাটাগরী অনুসারে যে ফ্রি নির্ধারণ করা হয় সেটি প্রধান করতে হবে। 

৫ সাক্ষাৎকারে যোগদান করুন অর্থাৎ আপনার রোমানের ভিসার জন্য আবেদন কমপ্লিট হয়ে যাওয়ার পর, ভিসা অফিসে সেই সকল আবেদনের কপি নিয়ে জমা দিতে হবে। 

ছয় প্রমাণীয় ভিসা অ্যাপ্লিকেশন টিট্রাক করুন অর্থাৎ আপনাকে যেই কনফারেন্সশন মেইল পাঠানো হবে, সেই ইমেল এর মাধ্যমে আপনি ট্রাক করতে পারবেন আপনার ভিসা আবেদনের কাজ কতটুকু সম্প্রদক করা হয়েছে। 

সরকারিভাবে রোমানিয়া ভিসা কিভাবে পাওয়া যায় এ সম্পর্কে আরো বিস্তারিত তথ্য আজকের মত এতোটুকুই ছিল

আশা করব আমার এই আর্টিকেলটি অবশ্যই আপনাদের ভালো লেগেছে এবং বুঝতে সক্ষম হয়েছেন। 

এছাড়া অন্য কোন ভিসা সম্পর্কে জানতে হলে আমার এই সাইটের অন্য কোন আর্টিকেলে জেনে নিতে পারবেন। সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন। 



3th Post

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন

যোগাযোগ ফর্ম