ইতালি ভিসা অনলাইন আবেদন কিভাবে করতে হয়

ইতালি ভিসা অনলাইনে আবেদন এবং এর বিস্তারিত তথ্য সম্পর্কে আপনারা যারা জানতে আগ্রহী তাদের জন্য আমার এই আর্টিকেলটি। 

আশা করব আপনারা যারা ইতালি ভিসা অনলাইনে আবেদন করতে চান তারা আমার এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়ার পরে অবশ্যই করতে পারবেন। 

তাই আশা করব আপনারা এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়বেন এবং পড়ার পরে ইতালি বিষয়ে আরো বিস্তারিত কিছু তথ্য পেয়ে যাবেন। 

আপনাকে আগে জানতে হবে ইতালি ভিসা বাংলাদেশিদের জন্য কয় ধরনের হয়ে থাকে কেন না আপনি যদি এ সম্পর্কে না জানেন তাহলে আপনি এপ্লাই করতে পারবেন না। 

ইতালি ভিসা মূলত দুই ধরনের হয়ে থাকে একটি হলো সিজনাল ভিসা দ্বিতীয়টি হল ননসিজোনাল ভিসা এই দুই ধরনের ভিসা দেওয়া হয়ে থাকে। 

আপনি যদি সিজনাল ভিসায় যেতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই মনে রাখতে হবে সিজনাল ভিসা এটি স্বল্পমেয়াদি হয়ে থাকে। 

এই ভিসার মাধ্যমে আপনি সর্বোচ্চ ছয় মাসের চুক্তিতে ইতালি অবস্থান করে কাজ করা যাবে। 

ছয় মাস শেষ হয়ে গেলে উক্ত অফিসার মালিককে দেশে ফিরিয়ে আসতে হবে না হলে ওই ব্যক্তিকে ইতালিতে অবৈধ বলে বিবেচিত হবে। 

সিজনাল ভিসা তে মূলত কৃষি হোটেল ট্যুরিজম এইসব বিষয়ে কাজ করার জন্য লোক নেওয়া হয়ে থাকে ছয় মাস পরে কাজের চুক্তি শেষ সে দেশে ফিরে আসতে হয়। 

নন সিজনাল ভিসা হচ্ছে স্থায়ী ভিসা নন সিজনাল ভিশাকে জাতীয় ভিসা ও বলা হয়ে থাকে এই ভিসার মাধ্যমে আপনি যতদিন ইচ্ছে ইতালিতে থাকতে পারবেন। 

আপনি চাইলে সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে পারবেন, এই ভিসার মাধ্যমে আপনি স্থায়ী কাজ করতে পারবেন। নিজের কোন ব্যবসা বা অন্যান্য স্থায়ী যেকোনো বিষয়ে জন্য আপনি ইতালিতে অবস্থান করতে পারবেন। 

ইতালি ভিসা অনলাইন আবেদন কিভাবে করতে হয়ccccccccc


ইতালি ভিসা আবেদন লিংক

এবার আপনি জানতে চেয়েছেন ইতালি ভিসা আবেদন কিভাবে করবেন অর্থাৎ আবেদনের লিংক খুঁজছেন। 

তাদেরকে জানিয়ে দিন আপনাকে ইতালি ভিসার জন্য আবেদন করতে হলে কিছু নিয়ম মানতে হবে। 

অর্থাৎ আমি উপরে উল্লেখ করেছি দুই প্রকার ভিসা সম্পর্কে এবার আপনার ধারণা নিতে হবে আপনার কোন ধরনের ভিসার প্রয়োজন। 

তারপর আপনি উক্ত ভিসার জন্য আবেদনের যোগ্য কিনা তা যাচাই করে নিতে হবে। 

আপনার আবেদনের সাথে আপনার যে ডকুমেন্ট গুলি জমা দিতে হবে সেগুলি সম্পর্কে আপনার ধারণা থাকতে হবে। 

অর্থাৎ অ্যাপ্লিকেশনটি কত সময় নিতে পারবে এবং আপনাকে কত টাকা জমা দিতে হবে, প্রতিটি ভিসার আবেদন অবশ্যই আপনার ভিসা বিভাগের জন্য প্রযোজ্য। 

প্রতিটি ভিসার আবেদনের অবশ্যই আপনার ভিসা বিভাগের জন্য নির্দেশিকা গুলি মেনে চলবে। যদি আপনার কাগজপত্র গুলি ইংরেজিতে না হয়ে তবে আবেদন করার আগে আপনাকে অবশ্যই অনুবাদ করে নিতে হবে। 

এবার আপনি ইতালি ভিসা অনলাইনে আবেদন করার জন্য যে লিংকটি খুঁজছেন সেটি এখানে দেওয়া হল। 

আপনাকে শুরুতে এই লিংকটিতে প্রবেশ করার পরে যে ফর্মটি আছে ওই ফর্ম ডাউনলোড করে পূরণ করতে হবে। 

তারপরে আপনাকে ইতালি দূতাবাসে অ্যাপার্টমেন্ট নিতে হবে এপারমেন্ট এর পরে আপনার প্রয়োজনের সব ডকুমেন্টগুলো সাবমিট করতে হবে। 

এখানে দুটি লিংক দেওয়া হলো

একটি সিজনাল ভিসার জন্য। 

নাম্বারটি নন সিজনাল ভিসার জন্য। 


ইতালি ভিসা চেক

ইতালি ভিসা চেক কিভাবে করতে হয় এটা হয়তো অনেকেই জানেন না তাই আজকে আমি আপনাদের সহজ করার জন্য এখানে জানিয়ে দিলাম। 

আপনি যদি ইতালি ভিসা চেক করতে চান তাহলে আপনাকে একটি ওয়েবসাইটে গিয়ে সেখান থেকে চেক করে নিতে হবে। 

এক্ষেত্রে এখানে একটি লিঙ্ক দিয়ে দিলাম যে লিংকটির মাধ্যমে আপনি ওই ওয়েবসাইটে গিয়ে খুব সহজেই চেক করে নিতে পারবেন। 

ওই ওয়েবসাইটের লিংকটি এখানে দেওয়া হল ক্লিক করে প্রবেশ করুন। 


ইতালি ভিসা খরচ

আপনারা হয়তো এতক্ষণে জানতে সক্ষম হয়েছেন ইতালিতে যাওয়ার ক্ষেত্রে যে দুই ধরনের ভিসা দেওয়া হয়ে থাকেকি। 

তেমনি এই দুই ধরনের বিষয়ের ক্ষেত্রে দুই রকম চার্জ অর্থাৎ ইতালি ভিসা খরচ ধরা হয়ে থাকে। 

ইতালি সিজনাল ভিসা সিজনাল ভিসা সিজনাল ভিসা যাওয়ার খরচ হবে চার থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা মতন। 

এবং ইতালি নন সিজনাল ভিসা ক্ষেত্রে ১০ থেকে ১৫ লক্ষ টাকার মতন খরচ হয়ে থাকে। 

যেহেতু আমরা উপরে দিকে ইতালি যেতে সিজনাল ভিসা কত টাকা লাগে এবং নন সিজোনাল ভিসা কত টাকা লাগে। এ সম্পর্কে যে তথ্য জানানো হয়েছে হয়তো আপনারা বুঝতে সক্ষম হয়েছেন। 

ইতালি বিষয় বিস্তারিত তথ্য আজকের মতন এতোটুকুই ছিল আশা করব আপনারা আমার এই আর্টিকেলের মাধ্যমে ইতালির ভিসার খরচ। 

অনলাইনে আবেদন এছাড়াও আরো যে তথ্যগুলো জানতে সক্ষম হয়েছেন তাই ইতালির বিষয় অন্য একদিন অন্য কোন আর্টিকেল। 

নিয়ে আপনাদের মাঝে আবার হাজির হব আজকের মতন এই আর্টিকেলটি এতোটুকুই সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন। 

Your Code

Hasanbd787@

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন

যোগাযোগ ফর্ম