ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা পেতে কতদিন লাগে

এ পাঠক ভাই ও বোনেরা আপনারা যারা বিভিন্ন দেশ থেকে অর্থাৎ বেশিরভাগ বাংলাদেশ থেকে ইন্ডিয়ায় মেডিকেল ভিসা করে থাকেন। 

তারা হয়তো অনেকেই প্রশ্ন করে থাকেন দেন ইন্ডিয়া মেডিকেল ভিসা পেতে কতদিন লাগে এই সম্পর্কে জানতে খুবই আগ্রহী। 

তাই আজকে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা পেতে কতদিন লাগে এই বিষয়ে উপরে। 

আশা করব আপনাদের আমার এই আর্টিকেলটি ভালো লাগবে এবং এর থেকে আপনি খুব সহজে জানতে পারবেন। ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা পেতে কতদিন লাগে তাই আর বেশি কথা না বাড়িয়ে চলুন আজকের আর্টিকেলটি দেখে নেয়া যাক। 

ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা পেতে কতদিন লাগে


ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা

ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসার জন্য সময় লাগে আমরা যে টুরিস্ট ভিসা পেয়ে থাকি ঠিক সেরকমেরই ডকুমেন্টগুলি লাগে। 

এবং পাশাপাশি এর সাথে লাগবে আপনি বাংলাদেশে যে ডাক্তার দেখিয়েছেন সেই ডাক্তারের পেপার অর্থাৎ যে রিপোর্টগুলো আপনি ডাক্তারের কাছ থেকে পেয়েছেন। 

সেগুলো এর সাথে লাগবে ইন্ডিয়ান ডাক্তারের কাছ থেকে অ্যাপার্টমেন্ট লেটার যে ডাক্তারকে আপনি দেখাবেন সেই ডাক্তারের। 

কিছু বর্ণনা করেন নি এখানে প্রথমে ইন্ডিয়াতে টুরিস্ট ভিসার যাওয়ার জন্য যে ডকুমেন্টগুলো লাগে সেগুলোর মাধ্যমে খুব সহজেই আপনি পেয়ে যাবেন ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা। 

এছাড়া ইন্ডিয়ান ভিসা পাওয়ার জন্য সময় লাগে মাত্র ৭ থেকে ১৪ দিন এবং কম সময়ে লাগে তিন থেকে সাত দিনের মধ্যে পাওয়া যায়। 

এছাড়াও ইন্ডিয়ান ভিসা ইমার্জেন্সি ক্ষেত্রে নিম্নে যে আলোচনা করব ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা কিভাবে আমরা তিন দিনের মধ্যে পেতে পারি সেই বিষয়ে আপনারা দেখতে পাবেন। 

ইন্ডিয়ান ভিসা পাওয়ার জন্য বর্তমান ইন্ডিয়ান সরকার কি কি আপডেট এসেছে এবং কোথায় তথ্যগুলো জমা দিতে হয় তা আমি উপরে আলোচনা করেছি। 

তাই বন্ধুরা সর্বপ্রথম বলে রাখি ইন্ডিয়ান ভিসা পাওয়ার বর্তমানে খুবই সহজ প্রথমে বলে নেই ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা পেতে কি কি লাগবে সেগুলো আমি উপরে উল্লেখ করেছি। 


ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা ও টুরেট ভিসা তথ্য

আপনার ন্যাশনাল আইডি কার্ড লাগবে যদি আপনার বয়স ১৮ হয়ে তাহলে বাধ্যতা মূলক সার্টিফিকেট লাগবে মানে আপনার জন্ম নিবন্ধন। 

দ্বিতীয় তো লাগবে আপনি যে বাসায় থাকেন সেই বাসার ইন্টারনেট বিল, পানির বিল, গ্যাস বিল, বিদ্যুৎ বিল, ডিস বিল, টেলিফোন বিল, ইত্যাদি এসব বিলের যে কোন একটি বিলের ফটোকপি বা অরিজিনাল কপি। 

এরপর লাগবে আপনার ব্যাংক স্টেটমেন্ট অথবা আপনি যে পাসপোর্ট করেছেন সে পাসপোর্ট ১৫০ ডলারের প্রবেশ করান তাহলেও চলবে। 

ব্যাংক স্টেটমেন্ট করাটা ভালো এটা উত্তম ব্যাংক স্টেটমেন্ট হতে হবে লাস্ট ছয় মাসের ৬ মাসের মধ্যে যদি আপনার ব্যাংক স্টেটমেন্টের কপি থাকে তাহলে আপনি সেটি জমা দিতে পারবেন। 

সবচেয়ে ভালো হয় রিসেন্ট ব্যাংক স্টেটমেন্ট ফলো করে রিসেন্ট ব্যাংক স্টেটমেন্ট দেওয়ার জন্য। 

যদি পারেন একটি স্টেটমেন্ট হতে পারে সেটি একমাস আগে বা ৭ দিন আগে উঠান তাহলে সে ক্ষেত্রে ভালো হয়। 

এরপর লাগবে এক কপি ছবি কিন্তু পাসপোর্ট সাইজের নয় এর সাইজের হচ্ছে 2/2 অর্থাৎ 2 ইঞ্চি বাই 2 ইঞ্চি এবং ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড অবশ্যই সাদা হতে হবে। 

এছাড়া লাগবে পাসপোর্ট এর ফটোকপি ভিসা ছয়টি ডকুমেন্ট লাগে সেটি হল ন্যাশনাল আইডি কার্ড ২ ইউনিট বিল। 

তিন ব্যাংক স্টেটমেন্ট চায়ের প্রফেশনাল ট্যুরিস্ট হলে বিজনেসম্যান হলে বিজনেসম্যান হলে জব হোল্ডারের প্রমাণপত্র এক কপি ফটো পাসপোর্ট এর ফটোকপি ছবি টু বাই টু। 

ইন্ডিয়া অ্যাপ্লিকেশনের সাথে যোগ করে দিতে হবে তাহলে আপনারা এতক্ষণে আমার এই আর্টিকেল থেকে হয়তো বুঝতে সক্ষম হয়েছেন। 

আপনি ইন্ডিয়ান মেডিকেল ভিসা পেতে কতদিন লাগতে পারে এবং কিভাবে পাবেন এছাড়াও পেতে কি কি ডকুমেন্টগুলো প্রয়োজন হয় সে সম্পর্ক। 

তাই আশা করব আপনারা আমার এখান থেকে কিছুটা হলেও উপকৃত হয়েছেন তাই যারা ইন্ডিয়ায় ডাক্তার দেখানোর জন্য যেতে চান তারা। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন

যোগাযোগ ফর্ম