চঞ্চল চৌধুরীর কারাগার মুভি রিভিউ

প্রিয় পাঠক ভাই ও বোনেরা আজকে আমি আলোচনা করব চঞ্চল চৌধুরী কারাগার মুভির রিভিউ। চঞ্চল চৌধুরীর বর্তমানে সিরিজগুলো বের হয়েছে সেগুলো আসলেই অসাধারণ মুভি, আজকে আমি আলোচনা করব কারাগার মুভিররিভিউ নিয়ে। আপনারা যারা এখনো কারাগার দেখেননি তাদের বলব অবশ্যই তারা কারাগার মুভিটি দেখে নিন। 

চঞ্চল চৌধুরীর কারাগার মুভি রিভিউ


কেননা এটি একটি অসাধারণ মুভি হয়েছে আর যারা কারাগার মুভিটি দেখেছেন তারা তো জানেনই কারাগার মুভি আসলে কেমন মুভি। এজন্য কারাগার মুভি আপনারা আগে দেখে তারপরে কমেন্ট করুন আমার এখান থেকে কারাগার মুভি, কিছুসংখ্যক ধারণা তুলে ধরলাম আপনাদের মাঝে। তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক কারাগার মুভিররিভিউ সম্পর্কে। 

আমাদের এপার বাংলা থ্রিলার বাদ দিয়ে শুধু মিষ্টি ড্রামা নিয়ে আগে কখনো কেউ সিরিজ বানায়নি।  একটামাত্র সাদামাটা কন্টাক্ট ছিল কিন্তু কারাগার পাঠ অন ছিল সবকিছু এক অনন্য মিশ্রণ এবং এখন পর্যন্ত এটা নিঃসন্দেহে এপার বাংলা সেরা কাজ। 


কারাগার মুভির প্লট


সেটা আমরা কমবেশি সবাই জানি যে একটা জেলখানার সেল রয়েছে ১৪৫ প্রতি দিনের মতোই কয়েদি গোনার জন্য গিয়ে একজন কয়েদি বেশি পাওয়া যায়। তাও আবার এমন একটা সেলএ  যেটা গত ৫০ বছর ধরে বন্ধ, এখন কে উই লোক কি তার পরিচয় কিভাবে ঢুকলো, গত পঞ্চাশ বছর ধরে বন্ধ হয়ে থাকা সেলফিতে। কিভাবে আসলো এইসব প্রশ্নের মুখোমুখি হতে আপনাকে হইচই গিয়ে দেখতে হবে কারাগার সিরিজটি। 

চঞ্চল চৌধুরীর কারাগার মুভি রিভিউ


কারাগার মুভির অভিনয়


এই সিরিজের অন্যতম ভালো একটা দিক হচ্ছে যে এখানে প্রতিটি চরিত্রকে ইম্পর্টেন্স দেওয়া হয়েছে। থাম্বেল চঞ্চল চৌধুরী আছেন বলে যে শুধু তার স্কিন প্লে বেশি থাকবে এমনটাই ছিল না, এবার আসি অভিনয়ের দিকে। চঞ্চল চৌধুরীকে দিয়েই শুরু করি, আপনারা অনেকেই বলেছেন যে এখন পর্যন্ত কারাগার তার বেস্ট কাজ। 

কিন্তু আমি বলব না এটা তার বেস্ট কাজ, বেস্ট পারফরমেন্স ছিল না তিনি যে বেস্ট সেটা আরো অনেক আগেই প্রমাণ করে দিয়েছেন। তাই আপনাদের কাছে ওনার ভিন্ন কিছু সং মনে হয় বেস্ট তিনি এমন একজন অভিনেতা, যে ওনাকে আপনি যতই চ্যালেঞ্জিং ক্যারেক্টার দেন না কেন উনি সেটা কোন দ্বিধা ছাড়াই আপনাকে পেলে করে দেখাবেন, হয়তো এখানেই আছেন কোন অভিনেতার জাত সার্থকতা। 

তবে এই না যে এটা তার এভারেজ কাজ অবশ্যই এটা তার অনেক ভালো কাজ, তার চরিত্রের এক্সপ্রেশন লোক এগুলো ছিল একদম টপ লেভেল। এর সাথে তার বোকা বোকা ভাব অভিনয়ও অনেক প্রশংসার দাবিদার, জেলার মোস্তাকের চরিত্রে রয়েছে ইন্তেখাব ডিনার। তার চরিত্রটা অনেক প্রতিটি এত সুন্দর করে তিনি ডেলিভারি দিয়েছেন তারা ভয় দুশ্চিন্তা আবার ভুল স্বীকৃতি একেক সময় একেক পার্টনার খুব ভালো লেগেছে দেখতে। 

তাসনিয়া ফারিন ও দুর্দান্ত ছিলেন এফ এস নাইম কে অনেক দিন পরে দেখলাম তিনিও তাঁর জায়গায় যথেষ্ট ভাল করেছেন। আফজাল হোসেন- সুরমা পড়া চোখের লোক দেখলে আসলে একটু শরীর কাটা দিয়ে উঠেছিল যতক্ষণ স্কিনে ছিলেন বেশ ভালো অভিনয় করেছেন। 

সাপোর্টিং কাস্টগুলোও অনেক ভাল ছিল শতাব্দি ওয়াদুদের গ্লিম্পজও বেশ প্রমিজিং ছিল হয়তো কারাগার মুভির পার্ট ২ তে তাকে আরো ইন ডিটেইলে আমরা দেখতে পাব। 

চঞ্চল চৌধুরীর কারাগার মুভি রিভিউ

আরেকজনের কথা একটু বলি একটা কয়েদি আছে হ্যাংলা কালো করে উড়িয়া টাইপ ওই ছেলেটার চরিত্রটা একদম ফানি ছিল। ভলিবল খেলার সময় যখন তার স্বার্থের সিনিয়র ভাষণ দেয় তখন ছেলেটার দিকে একবার তাকাইয়েন ওর করা রিপোর্টের সিন গুলো দেখে আপনি হাসতে বাধ্য হবেন। 

প্রিয় দর্শক আপনারা যারা এতক্ষন চঞ্চল চৌধুরী কারাগার মুভিররিভিউ পড়েছেন, তারা হয়তো বলতে সক্ষম হয়েছেন জেন কারাগার মুভিটি আসলেই অসাধারন ছিল। তাই কারাগার মুভি পার্ট ২ বের হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। 

কেননা ভালো কোন মুভি হলে সেটি পরিচালক পার্ট ওয়ান পার্ট ২ করে এজন্য চঞ্চল চৌধুরী কারাগার মুভিটি পাট ২ করার কথাও চিন্তা ভাবনা করছেন পরিচালক। তাই আপনারা যারা কারাগার মুভি দেখেন নি এখনি অবশ্যই কারাগার মুভিটি দেখে নিন। 

আশা করি আপনাদের যেরকম রোমাঞ্চকর তেমনি ভয়-ভীতি পাওয়ার মতন একটি মুভি, প্রিয় পাঠক কারাগার মুভির রিভিউ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা আজকের মতো এতোটুকুই ছিলো। আশা করি আপনাদের কারাগার মুভির রিভিউ টি অবশ্যই ভালো লেগেছে তাহলে সবাই ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন। 


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন

যোগাযোগ ফর্ম