ঢালিউড কি এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা

প্রিয় পাঠক আজকে আলোচনা করব আপনাদের সাথে যে ঢালিউড কি এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। আমরা যারা ঢালিউড মুভি দেখি হয়তো জানি না এ সম্পর্কে তাই আমি আজকে আপনাদের সাথে ঢালিউড কি এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। 


আমরা বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন মুভি দেখে থাকি কিন্তু কোন দেশের কোন মুভি এটা হয়তো জানি না।  আমরা শুধু জানি ইংলিশ মুভি, তামিল মুভি, হিন্দি মুভি, কলকাতার মুভি, বাংলাদেশের মুভি, কিন্তু এছাড়াও এটি একটি নাম রয়েছে। 


আমি আজকে এখানে শুধু আলোচনা করব ঢালিউড এ সম্পর্কে আশা করি আপনারা বিস্তারিতভাবে ঢালিউড সম্পর্কে জানতে পারবেন। তাই আর বেশি কথা না বাড়িয়ে চলুন জেনে নেয়া যাক ঢালিউড এবং এর বিস্তারিত আলোচনা সম্পর্কে। 

ঢালিউড কি এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা


ঢালিউড কি

টালিউড এবং ঢালিউড  দুটি বাংলাদেশি ফিলম  ইন্ডাস্ট্রি কিন্তু টালিউড ভারতীয় এবং ঢালিউড বাংলাদেশের। এ দুটির প্রাণকেন্দ্র যথাক্রমে টালিগঞ্জ এবং ঢাকায় হওয়ায় টালিউড এবং ঢালিউড বলা হয়, এছাড়া তেলেগু তামিল ইন্ডাস্ট্রিকেও টালিউড বলা হয়ে থাকে। ঢালিউড কি এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা এতোটুকুই ছিলো, এবার আমরা আলোচনা করব ঢালিউডের বৃহত্তম কয়েকটি সিনেমা হল সর্ম্পকে। 


মনিহার হল

মনিহার সিনেমা হল যশোর জেলায় অবস্থিত বাংলাদেশের বৃহত্তম সিনেমা হল ১৯৮৩ সালের ৮ ডিসেম্বর এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। আধুনিক স্থাপত্যশৈলীর জন্য প্রতিষ্ঠার অল্প সময়ের মধ্যেই সিনেমা হলটি খ্যাতি অর্জন করে। জাপান-কোরিয়া-আফ্রিকা-অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড-রাশিয়া প্রভৃতি দেশ থেকে চলচ্চিত্রপ্রেমীরা মনিহারে আসতেন চলচ্চিত্র দেখার জন্য, বাংলাদেশী চলচ্চিত্র শিল্প মনিহার একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব বিস্তার লাভ করে। 


মনিহার হল ইতিহাস

মনিহার সিনেমা হল প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৮৩ সালে ১৮ ডিসেম্বর এর নকশা করেন কাজী মোহাম্মদ হানিফ।  এই সিনেমা হলটি একসময় ঢালিউডের অন্যতম প্রধান কেন্দ্র হিসেবে বিবেচিত হতো, তৎকালীন বাংলাদেশের অধিকাংশ চলচ্চিত্রের উদ্বোধনী প্রদর্শনী মনিহারে উদ্বোধনের পর মনিহারে প্রথম প্রদর্শিত হয়। দেওয়ান নজরুল পরিচালিত সোহেল রানা ও সুচিত্রা অভিনীত চলচ্চিত্র জনি। 


মনিহার হল এর বর্তমান অবস্থা

২০১২ সালে ২২ শে জুলাই প্রথমবারের মতো মনিহার সিনেমা হল বন্ধ হয়ে যায়, এলাকায় সন্ত্রাসীদের হামলা ও চাঁদাবাজির জন্যই সিনেমা হলটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরবর্তীতে ২০ দিন পর প্রশাসনিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং কর্মচারীদের দুর্দশার কথা বিবেচনায় সিনেমা হলটি পুনরায় চালু করা হয়। 


যদিও হলটির অবস্থার কোন পরিবর্তন হয়নি সম্প্রতি হল অর্থনৈতিক অবস্থার আরো অবনতি হয়েছে।  পূর্বে হলটিতে ১০০ জন কর্মচারী কাজ করলেও বর্তমানে ৪০ জন কর্মচারী কাজ করেন, পাশাপাশি মনিহার কে ঘিরে গড়ে ওঠা আরো অসংখ্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও রয়েছে। 


মনিহার হল এর বিশেষত্ব

চার বিঘা জমির উপর প্রতিষ্ঠিত সিনেমা হলটি আসন সংখ্যা ১৪০০ শিল্পী এস এম সুলতান এর তত্ত্বাবধানে নির্মান পরবর্তী সাজসজ্জার কাজ সম্পন্ন হয়। অতীতে ঢালিউডের চলচ্চিত্রের পাশাপাশি হলিউড ও বাংলাদেশের ভারতের যৌথ প্রযোজনায় পরিচালিত চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়। 


সিনেমা হল ভবনের চতুর্থ তলায় অবস্থিত সম্পূর্ণ শীতল তাপ নিয়ন্ত্রিত এছাড়া সিনেমা হল একটি কমিউনিটি সেন্টার, একটি আবাসিক হোটেল, ও প্রায় ৪০ টি দোকান রয়েছে, বর্তমানে মনিহারে ৪০ জন কর্মচারী কর্মরত আছেন। 


শ্যামলী সিনেমা হল 

শ্যামলী সিনেমা হল বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা মিরপুর থানার শ্যামলীতে অবস্থিত, একটি চলচ্চিত্র প্রেক্ষাগৃহ মূলত এই প্রেক্ষাগ্রহের নাম অনুসারে এলাকাটির নামকরণ করা হয়েছে। শ্যামলী এ মেয়ে গাফফার ১৯৭৬ সালে ২৬ শে মার্চ শ্যামলী সিনেমা হল চালু করেন। এর আসন সংখ্যা ছিল ১৩০০ শ্যামলীতে প্রদর্শিত প্রথম সিনেমাটি ছিল জাল থেকে জ্বালা। 


২০০৭ সালে শ্যামলী সিনেমা হল এর পুরনো ভবনটি ভেঙে শ্যামলী  স্কয়ার মার্কেট কমপ্লেক্স নির্মাণ কাজ শুরু করে। ফলে ওই বছরের ৩১ শে আগস্ট শ্যামলী সিনেমা বন্ধ হয়ে যা,য় পরবর্তীতে এন এ গাফফারের ৫ছেলের উদ্যোগে ২০১৪ সালের ১৪ এপ্রিল শ্যামলী কমপ্লেক্সের নতুন রূপে শ্যামলী সিনেমা হল চালু হয়। সিনেমা হল আধুনিক যুগের সুবিধা যোগ করা হয়, এবং আসন সংখ্যা কমিয়ে ৩০৬ টি তে নিয়ে আসা হয়। 


প্রিয় পাঠক ঢালিউড কি এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা আজকের মতো এতোটুকুই ছিলো, আমরা এখানে ঢালিউড বলিউড এ সম্পর্কে কমবেশি বিস্তারিত আলোচনা করেছি। এবং বাংলাদেশের সিনেমা হল এর সম্পর্ক বেশ কিছু আলোচনা করেছি। আশাকরি আপনারা এখান থেকে কিছুটা হল বাংলাদেশের ঢালিউড বলিউড সম্পর্কে জানতে সক্ষম হয়েছেন, সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন

যোগাযোগ ফর্ম